Skip to main content

কিভাবে তাড়াতাড়ি ওজন কমাবেন: ৩টি খুব সহজ উপায়

বন্ধুরা বর্তমানে নিজের ওজন কমানোর অনেক সহজ উপায় রয়েছে। যদি আপনি এই উপায় গুলি অনুসরণ করেন তাহলে আপনি খুব তাড়াতাড়ি নিজের ওজন কমাতে পারেন।


কিন্তু, ওজন কমানোর এই পদ্ধতি গুলি প্রথম দিকে আপনার পক্ষে পালন করা সহজ হবে না। তবে কিছু দিন পরে এগুলো আপনার অভ্যাস হয়ে উঠবে।

আপনার ওজন খুব তাড়াতাড়ি কমানোর এই হলো ৩টি সহজ উপায়:

১. চিনি এবং অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাবার আপনার খাদ্য তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে।


আপনি যদি রোগা হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন তাহলে সবার আগে আপনার খাদ্য তালিকা থেকে মিষ্টি এবং অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাবার বাদ দিতে হবে। কারণ চিনি যুক্ত খাবার বিজ্ঞান মতে মোটা হওয়ার কারণ এবং এটি আপনাকে ভবিষ্যতে ডিয়াবেটিস এর দিকে ঠেলে দিতে পরে। 

চিনি যুক্ত খাবারে অনেক বেশি ক্যালোরি থাকে। আর আপনি যদি রোগা হতে চান তাহলে সেই ক্ষেত্রে আপনাকে সবসময় কম ক্যালোরি যুক্ত খাবার খেতে হবে। আপনি যদি আপনার খাদ্য তালিকা থেকে চিনি এবং অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাদ্য বাদ দেন তাহলে আপনি মাত্র এক সপ্তাহে ৫ কেজি অবধি ওজন কমাতে পারেন।

২. প্রোটিন, ফ্যাট এবং শাকসব্জি জাতীয় খাবার খেতে হবে।


আপনাকে আপনার খাদ্য তালিকাতে প্রোটিন, ফ্যাট এবং কম শর্করা জাতীয় শাকসব্জি যুক্ত করতে হবে। এই খাদ্য গুলো আপনাকে রোগা হতে সাহায্য করবে।

প্রোটিন জাতীয় খাদ্য:


প্রোটিন জাতীয় খাদ্যের মধ্যে মুরগির মাংস, সলমন মাছ, পমফ্রেট মাছ, চিংরি মাছ, ডিম, মুসুর ডাল, মাশরুম, সোয়াবিন এগুলো অনেক বেশি প্রোটিন যুক্ত খাদ্য। এগুলো আপনার চারপাশে খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।

কম শর্করা জাতীয় শাকসব্জি:


ব্রোকলি, ফুলকপি, শাক, টমেটো, বাঁধাকপি, ছোলা, লেটুস, সসা ইত্যাদি শাকসব্জি আপনাকে দৈনন্দিন খাদ্য তালিকাতে যুক্ত করতে হবে।

আপনাকে ভাত রুটি কম খেতে হবে এবং শাক সবজি বেশি খেতে হবে। এতে অনেক বেশি ফাইবার, ভিটামিন এবং মিনারেলস থাকে যা আপনাকে সুস্বাস্থ্য গঠনে সাহায্য করবে এবং এর মাধ্যমে আপনি পেট ভর্তি খেয়েও আপনার ওজন খুব সহজেই কমাতে পারবেন।

ফ্যাট এর উৎস:


ফ্যাট অর্থাৎ তেল হিসেবে আপনি অলিভ অয়েল, নারকেল তেল, অভোক্যাডো তেল, বাটার আপনার খাদ্য ব্যাবহার করতে পারেন খুব কম পরিমাণে।

আপনি দিনে তিনবার খাওয়ার অভ্যেস করুন- সকাল, দুপুর এবং রাত্রে। এর পরেও যদি আপনার খিদে পায় তাহলে আপনি দিনে চার বার খেতে পারেন।

৩. সপ্তাহে ৩ দিন ব্যায়াম করুন।


এই প্ল্যান অনুযায়ী ওজন কমানোর জন্য আপনার ব্যায়াম করার প্রয়োজন নেই। কিন্তু দ্রুত ওজন কমানোর জন্য এবং সুস্থ থাকার জন্য ব্যায়াম করা দরকার।

সবথেকে ভালো উপায় হলো কোনো একটি জিমে যান। সপ্তাহে ৩-৪ দিন হালকা ব্যায়াম করুন। যদি আপনি জিমে নতুন তাহলে একজন প্রশিক্ষক নিন।

যদি আপনি জিমে যেতে পছন্দ না করেন তাহলে রোজ হাঁটুন, জগিং করুন, দৌড়ান, সাইকেল চালান, সাঁতার কাটুন। এর মাধ্যমে আপনার শরীরের মেদ খুব সহজেই ঝরে যাবে।

আরো কিছু বোনাস টিপস

  • মিষ্টি পানীয় যেমন বাজারে বিক্রি হয় এইরকম ফলের জুস খাবেন না। এগুলিতে প্রচুর পরিমাণে চিনি মেশানো থাকে। যেগুলো দেখতে হেলদি হলেও আসলে হেলদি নই।
  • সারা দিনে প্রচুর পরিমাণে জল খান। বিজ্ঞান মতে জল মেদ কমাতে সাহায্য করে।
  • ব্ল্যাক কফি অথবা গ্রীন টি খান। এগুলিতে অনেক অন্টি অক্সিডেন্ট থাকে। যা আমাদের মেদ কমাতে সাহায্য করে।
  • যখন কোনো খাবার খাবেন সেটা আস্তে আস্তে খান। তাড়াতাড়ি খেলে আপনি নিজের অজান্তে অনেক বেশি খেয়ে ফেলবেন যেটা মেদ কমানোর জন্য সঠিক নয়।
  • নিজের ওজন রোজ চেক করুন অথবা ২-৩ বাদে বাদেই চেক করুন।
  • রাত্রে ভালো ঘুমোন। রাতের অপর্যাপ্ত ঘুম আপনার ওজন বেড়ে যাওয়ার কারণ হতে পারে।

Comments

Popular posts from this blog

বিজ্ঞান সম্মত ভাবে ওজন কমানোর আরো ২১ টি টিপস

ওজন কমানোর ব্যাপারে মানুষের মনে অনেক ভুল ধারণা আছে। বর্তমানে আপনাদের ওজন কমানোর জন্য এমন অনেক উপদেশ দেওয়া হয় যেগুলোর পেছনে কোনো বিজ্ঞান সম্মত ব্যাখ্যা নেই।

কিন্তু বিজ্ঞানীরা বহুবছর ধরে পর্যবেক্ষণ করার পরে ওজন কমানোর একাধিক উপায় জানিয়েছেন। যেগুলি সত্যিই আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করবে যদি আপনি এই টিপস গুলি মেনে চলেন।

এই হলো বিজ্ঞান সম্মত উপায়ে ওজন কমানোর ২৫ টি টিপস-

১. অনেক জল পান করুন, বিশেষ করে খাবার আগে।
বর্তমানে যেটা জানানো হচ্ছে যে জল পানে আপনার মেদ কমবে এবং এটি বিজ্ঞান সম্মত ভাবে সত্য।
আপনি যখন জল পান করেন তখন আপনার মেটাবোলিজম ২০-৩০% বেড়ে যায়। এবং এই মেটাবোলিজম আপনার শরীরের মেদ ঝরাতে সাহায্য করে।
২. সকালের নাস্তায় ডিম খান।
আপনি সকালে শর্করা জাতীয় খাবার রুটি, ভাত না খেয়ে যদি আপনি তার বদলে ডিম খান তাহলে আপনার শরীর অনেক উন্নত মানের প্রোটিন গ্রহন করে। যা কম ক্যালোরি বিশিষ্ট। যা আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করবে।
আপনি যদি ডিম খেতে পছন্দ না করেন তাহলে আপনি অন্য কোনো ভালো প্রোটিন জাতীয় খাবার খেতে পারেন।
৩. ব্ল্যাক কফি পান করুন।
ব্ল্যাক কফির একাধিক উপকারিতা আছে। তাদের মধ্যে অন্যতম হ…